গ্রিস

গ্রিস নামটা শুনলেই চোখের সামনে ভেসে ওঠে শতাব্দী প্রাচীন সভ্যতার টুকরো টুকরো নানা সাক্ষ্য। গ্রিসের পরতে পরতে জড়িয়ে আছে রোমান্স, ইতিহাস ও ঐতিহ্য। প্যালিওলিথিক যুগ থেকে শুরু করে রোমান সভ্যতা- সবকিছুরই স্বাক্ষর থেকে গেছে গ্রিসের আধুনিক সময়ে। ইতিহাসের হাত ধরে নতুনকে আপন করে নিয়েছে এই স্বপ্নের রাজ্য। ফেলে আসা ইতিহাস এবং বর্তমানকে আলিঙ্গন করে ইউরোপ, এশিয়া এবং আফ্রিকার সংযোগস্থলে দাঁড়িয়ে রয়েছে সুন্দরী গ্রিস। ভ্রমণপিয়াসীর কাছে গ্রিস ভালোবাসার বন্ধন তৈরি করে।

পাহাড় থেকে শুরু করে সমুদ্র বা জমজমাট শহর সবকিছুই এখানে পাওয়া যাবে। সমুদ্র সফেনের প্রতি যদি থাকে আপনার আকর্ষণ, তাহলে বেছে নিন বিস্তৃত গ্রিক আইল্যান্ড থেকে পছন্দের জায়গাটি। বেশিরভাগ গ্রিক আইল্যান্ডই এজিয়ান সাগরকে ঘিরে অবস্থিত। উত্তর থেকে দক্ষিণে মোট সাতটি ভাগে বিভক্ত এই দ্বীপগুলো। তালোস, ইকারিয়া, সামোস, স্কাইরস, হাইড্রা, স্যানটোরিনি, রোডস, লিপসি, কাইথিব্য- এমনই নানা অপূর্ব সুন্দর দ্বীপের হাতছানি, যা এড়িয়ে যাওয়া সম্ভব নয়। শহরের কোলাহল ও ব্যস্ততার থেকে অনেক দূরে কয়েকটা দিন প্রকৃতির খুব কাছাকাছি কাটাতে চাইলে গ্রিসের কিও আইল্যান্ড আপনার জন্য আদর্শ। শহরের জৌলুসও দেখার মতো।

গ্রিসের চারদিকেই ছড়িয়ে রয়েছে ঐতিহাসিক নানা স্মৃতি। আর সেই স্মৃতির সাক্ষী হতে চাইলে ঘুরে দেখুন এখনকার রাজধানী এথেন্স শহর। অ্যাক্রোপলিস, সিনট্যাকসা, স্কোয়ারে পার্লামেন্ট বিল্ডিং, ন্যাশনাল অর্কিওলজিক্যাল মিউজিয়াম, বেনাকি মিউজিয়াম- এসব দেখা মিস না হয়। এছাড়াও দেখতে পারেন সে বিশেষ জায়গটি যেখানে প্যানথেনাসিক গেমস আয়োজিত হতো, গন্তব্য কাল্লিমারমারো স্টেডিয়াম।

যদি গরমের সময়ে এথেন্সে যাওয়া হয়, তাহলে দেখার সুযোগ হবে হেলেনিক ফেস্টিভ্যাল পারফর্মিং আর্টসের- ফেস্টিভ্যাল হিসেবেই এটি সারা পৃথিবীতে বিখ্যাত। অডিশন অব হেরোডস অ্যাটিকাস থিয়েটারে সারা পৃথিবী থেকে শিল্পীরা আসেন পারফর্ম করতে। এছাড়াও লিকাভিডস হিলসে মিউজিক কনসার্টও হয়। অলিম্পিয়ার ভগ্নাবশেষ যদি না দেখেন তাহলে গ্রিস সফর অসম্পূর্ণ থেকে যাবে। এথেন্স থেকে গাইডেড ট্যুরও অ্যারেঞ্জ করা যায়। এতে প্রতিটি স্থান সম্পর্কে ভালোভাবে জানা যায়। গ্রিস যাওয়ার জন্য ভিসার প্রয়োজন হবে। প্যাকেজ ট্যুর করেও যেতে পারেন। ট্রাভেলস এজেন্সি আপনার এয়ার টিকিট থেকে শুরু করে ভিসার ব্যবস্থাও করে দেবে। এথেন্সকে বেস করে ঘুরে দেখতে পারেন গ্রিসের বিভিন্ন আইল্যান্ড ও শহর।

গ্রিসের আবহাওয়া মেডিটেরেনিয়ন, তাই গরম হোক অথবা শীত কোনো সময়েই খুব একটা অস্বস্তিকর আবহাওয়া থাকে না। বছরের যেকোনো সময়েই এখানে বেড়াতে যাওয়ার প্ল্যান বানিয়ে ফেলা যায়। পৃথিবীর অন্যতম সেরা ট্যুরিস্ট স্পট হওয়ার ফলে এখানে হোটেল ইন্ডাস্ট্রি খুবই ওয়েল ডেভেলপড। লাক্সারি থেকে শুরু করে বিভিন্ন রেঞ্জে হোটেল পাবেন। গ্রিসের সৌন্দর্য এতটাই মুগ্ধ করবে আপনাকে।

Anonymous এর ছবি
CAPTCHA
এই প্রশ্নটি আপনি একজন মানব ভিজিটর কিনা তা যাচাই করার জন্য এবং স্বয়ংক্রিয় স্প্যাম জমাগুলি প্রতিরোধ করার জন্য।