আপন কফি হাউজ

খিলগাঁও তালতলা মার্কেট থেকে মালিবাগ কমিউনিটি সেন্টারে যাওয়ার রাস্তাটা বেশ সুনসানই থাকত। নিয়মিত গাড়ির যাতায়াত ছাড়া কখনো তেমন একটা ভিড় এই রাস্তায় চোখে পড়ত না।

তবে এখন এই রাস্তা দিয়ে চলা দায়। সারাক্ষণ গাড়ি আর মানুষের ভিড় লেগেই থাকে, বিশেষ করে সন্ধ্যার পর। বেশ লম্বা এই রাস্তার দু’ধারে সারি সারি খাবারের দোকানের পাশাপাশি বিভিন্ন ব্যাংক, পোশাকের দোকান এবং গিফটের দোকান পাবেন। কিন্তু সুনসান জায়গাটিতে এত মানুষের ভিড় একদিনে লাগেনি। আজকের এই অবস্থায় আসতে বেশ বড় অবদান আছে আপন কফি হাউজের।

আপন কফি হাউজ ছোট পরিসরেই তাদের কার্যক্রম শুরু করে। তাদের চকোলেট কোল্ড কফি খাওয়ার জন্য দিনে দিনে বাড়তে থাকে ভিড়। দূর-দূরান্ত থেকে মানুষ আসতে থাকে এখানে একটা কফি খেতে। ব্যস আর কী লাগে। দিনে দিনে বাড়তে থাকে এই এলাকার দোকানপাট। আগে যেসব চাইনিজ খাবারের দোকানগুলো ছিল, সেগুলোও দিনে দিনে নিজেদের আরো ভালো করে সাজিয়ে নেয়। বাড়তে থাকে তাদেরও বিক্রিবাট্টা।

এখন মানুষের চাহিদার কারণে কাছাকাছিই দুটি দোকানে কফি বিক্রি করছে আপন কফি হাউজ। তবে এমন ভাবার কিছু নেই যে, জায়গা বেড়েছে বলে ভিড় কমেছে। দুই জায়গায় তাদের দোকান হলেও এখনো আপনি সেখানে গেলেই বসার জায়গা পাবেন এমন কোনো নিশ্চয়তা নেই।

তবে সেখানে বসে কফি খাওয়ার মানুষ বোধ হয় একটু কমই আছে। ভেতর থেকে কফি নিয়ে দল বেঁধে রাস্তার পাশে দাঁড়িয়ে আড্ডায় মাততে দেখা যায় তরুণ ছেলে-মেয়েদের।

কফি হাউজ নামের জন্য এখানে শুধু কফিই আছে তা নয়। বিভিন্ন ধরনের কোমল পানীয় পাবেন এখানে। চকোলেট, ক্যারামেল, বাটারস্কট, ডার্ক চকোলেট, মিল্ক চকোলেট, ক্যাপাচিনো ও পিনাট ফ্লেভারের কোল্ড কফি পাবেন। এছাড়াও বিভিন্ন ফ্লেভারের গরম কফির সঙ্গে সঙ্গে মিল্ক শেক এবং লাচ্ছিও আছে। দামের ভিন্নতাও আছে ফ্লেভার অনুযায়ী। তবে যে কফিটি সবচেয়ে বেশি জনপ্রিয়, সেটা হলো চকোলেট কোল্ড কফি।

তালতলা মার্কেটের সামনের রাস্তাটি শহীদ বাকি সড়ক। এই রাস্তার ৩৮১/বি-তেই পাবেন আপন কফি হাউজের দোকানটি।

আশপাশের বিভিন্ন খাবারের দোকান থেকে উদোর পূর্তির সঙ্গে সঙ্গে গলা ও মন জুড়াতে এখানকার কফির জুড়ি পাবেন না।

তাদের রিভিউ দেখতে ফেসবুকে খোঁজ করতে পারেন @apon.coffee.house -এ।

Anonymous এর ছবি
CAPTCHA
এই প্রশ্নটি আপনি একজন মানব ভিজিটর কিনা তা যাচাই করার জন্য এবং স্বয়ংক্রিয় স্প্যাম জমাগুলি প্রতিরোধ করার জন্য।