শীতে ছেলেদের ত্বকের যত্ন

চলছে শীতের আনাগোনা। এই সময়ে মেয়েদের পাশাপাশি ছেলেদের ত্বকও হয় ভীষণ রুক্ষ। বিশেষ করে গোসলের পর ত্বক হয় খসখসে। ফলে ত্বকে অস্বাভাবিকতা দেখা দেয়। এমনকি এই সময়ে নিয়মিত ত্বকের যত্ন না নিলে চোখের নিচে কালো দাগ, চামড়ায় ফাটলসহ নানা চর্মরোগের সৃষ্টি হয়। আর এসব সমস্যা থেকে রক্ষা পেতে হলে সঠিকভাবে ত্বকের যত্ন নিতে হয়।

এ প্রসঙ্গে চর্মরোগ বিশেষজ্ঞরা শামীম আর নিপা বলেন, বর্তমান বাজারে ছেলেদের জন্য বিভিন্ন ধরনের ক্রিম ও লোশন রয়েছে। তবে যাচাই-বাছাই করে ত্বকের জন্য সঠিক ক্রিম ব্যবহার করা উচিত। কারণ, প্রসাধনীর মান ভালো না হলে ত্বকের ক্ষতি হতে পারে। ছেলেদের ত্বকের যত্নে তার পরামর্শ হলো-

১. গোসলের পানি : খুব বেশি গরম পানি ব্যবহার করা যাবে না। অল্প সময় নিয়ে কুসুম গরম পানিতে গোসল করতে হবে।

২. ক্রিম, লোশন, সাবান : সব ধরনের প্রসাধনীই বাড়তি ময়েশ্চারাইজারযুক্ত হতে হবে। শেভ করার পর ত্বকে ক্রিম লাগানো যেতে পারে। এতে করে ত্বকে ফাটল ধরবে না।

৩. রোদ : যারা রোদে বেশি থাকেন, তারা সানস্ক্রিন লোশন ব্যবহার করতে পারেন।

৪. গোসলের পর করণীয় : গোসলের পর লোশন লাগিয়ে কিছুক্ষণ অপেক্ষা করতে হবে। সেটি যেন ত্বকে ভালোভাবে মিশে যায়। তারপর বাইরে বেরোতে হবে।

৫. ব্রণ এড়াতে : তৈলাক্ত ত্বকে ব্রণ বেশি ওঠে। এছাড়া ধুলাবালির কারণে ছেলেদের ত্বক বারবার পরিষ্কার করতে হয়।  ছেলেদের অয়েল কন্ট্রোল ফেসওয়াশ (ত্বকের তেল নিয়ন্ত্রণে রাখে এমন) ব্যবহার করা উচিত। তাহলে ত্বক ভালো থাকবে।

৬. ক্রিম ব্যবহারে করণীয় : বাজারে ছেলেদের জন্য নানা ব্র্যান্ডের ক্রিম পাওয়া যায়। সেগুলো ব্যবহার করার আগে ভালোভাবে মুখ পরিষ্কার করে নিতে হবে। তা নাহলে ক্রিম কাজ করবে না। এছাড়া রাতে ঘুমানোর আগে ম্যাসাজ ক্রিম ব্যবহার করা যেতে পারে। এতে ত্বক ঠাণ্ডা থাকে এবং ব্রণ ওঠে না। সকালে ঘুম থেকে উঠে ফেসওয়াশ দিয়ে মুখ ধুয়ে নিতে হবে।

৭. ত্বকের যত্নে ভেষজ : অবসর পেলে ভেষজ কোনো প্যাক লাগানো যেতে পারে। যারা প্যাক লাগাতে চান না, তারা কমলালেবু কিংবা পাকা টমেটো মুখে লাগিয়ে কিছুক্ষণ পর ভালোভাবে মুখ ধুয়ে নিতে পারেন। এতে ত্বক পরিষ্কার হবে।

৮. পানি পান : ত্বকের যত্নের জন্য প্রচুর পরিমাণে পানি পান করতে হবে।

৯. দ্রুত ঘুমাতে হবে : যতটা সম্ভব কম রাত জাগা উচিত। এতে ত্বক ভালো থাকে।

১০. শাক-সবজি : খাদ্যাভ্যাসের মধ্যে প্রতি বেলাতেই শাকসবজি রাখতে হবে।

১১. ফল : দিনে একটি হলেও ফল খেতে হবে এবং শুকনো খাবার যতটা সম্ভব এড়িয়ে যেতে হবে।

১২. ফেসিয়াল : শীতে ত্বকের বাড়তি যত্নের জন্য সপ্তাহে অন্তত একবার ফেসিয়াল করা যেতে পারে।

Anonymous এর ছবি
CAPTCHA
এই প্রশ্নটি আপনি একজন মানব ভিজিটর কিনা তা যাচাই করার জন্য এবং স্বয়ংক্রিয় স্প্যাম জমাগুলি প্রতিরোধ করার জন্য।