স্বাস্থ্য ফিচার  : কমলার জাদু

টক-মিষ্টি স্বাদের কমলা ছোট-বড় সবার প্রিয় ফল। একটা সময় ছিল শীত মৌসুমে কমলার জন্য অপেক্ষা করতে হতো। এখনো শীতেই কমলার দেখা বেশি মিললেও সারাবছর অল্পস্বল্প পাওয়া যায়। আমাদের দেশীয় কমলাও বেশ সুস্বাদু। এটি দেখতে রঙিন, খেতেও সুস্বাদু। শুধু রসনাবৈচিত্র্য নয়, পুষ্টিগুণে ঠাসা এই ফল আপনার ডায়েটে অপরিহার্য। কমলায় রয়েছে প্রচুর প্রোটিন, ফাইবার, মিনারেল, ভিটামিন, অত্যাবশ্যকীয় নিউট্রিয়েন্ট আছে যা শরীরের জন্য খুব উপকারী। কমলায় ক্যালোরি নেই। স্যাচুয়েটেড ফ্যাট ও কোলেস্টেরলও নেই। কমলা রক্তে কোলেস্টেরলের মাত্রা ঠিক রাখতে সাহায্য করে।

ভিটামিন ‘সি’ পরিপূর্ণ কমলা সুস্বাস্থ্যে উপকারী। ১০০ গ্রাম কমলায় আছে ৫৩.২ মিলিগ্রাম ভিটামিন ‘সি’। ভিটামিন ‘সি’ শরীরের ক্যালসিয়াম অ্যাবজর্ব করতে সাহায্য করে। ফলে শরীরের হাড় ও দাঁত ভালো রাখতে প্রতিদিন একটি করে কমলা খান।

কমলা ক্যান্সার প্রতিরোধে সাহায্য করে, এটি পরীক্ষিত। এটি ফ্রি র‌্যাডিক্যাল কমিয়ে হার্টের অসুখ প্রতিরোধ করে। শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়। এতে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন ‘এ’ আছে, যা ত্বক ও চোখের জন্য খুব ভালো। আরো আছে ভিটামিন ‘বি-১’, ভিটামিন ‘বি-২’, ভিটামিন ‘বি-৬’, ভিটামিন ‘সি’, ভিটামিন ‘ই’, ক্যালসিয়াম, পটাসিয়াম, ম্যাগনেসিয়াম, ডায়েরাটি ফাইবার আরো অনেক ভিটামিন ও মিনারেলস, যা ত্বকের জেল্লা বাড়াতে সাহায্য করে। হজমশক্তি বাড়াতেও কমলার জুড়ি নেই। কমলা জুস করেও খেতে পারেন। ঠাণ্ডা-কাশি দূর করতেও কমলা উপকারী। ছোট শিশুদের খাওয়ার পর কমলার জুস খাওয়ান। খেতে সুস্বাদু, সঙ্গে রূপচর্চায়ও ভালো কজে দেয় কমলা বা কমলার খোসা। খাবারের টেবিলে কমলার সালাদও রাখতে পারেন। কমলার রসে তৈরি বিভিন্ন মিষ্টি খাবার সুস্বাদু। নিয়মিত কমলা খান, সুস্থ থাকুন।

Anonymous এর ছবি
CAPTCHA
এই প্রশ্নটি আপনি একজন মানব ভিজিটর কিনা তা যাচাই করার জন্য এবং স্বয়ংক্রিয় স্প্যাম জমাগুলি প্রতিরোধ করার জন্য।