রূপচর্চা : বর্ষায় চুলের যত্ন

ব্যস্ত জীবনে রোদ হোক বা বৃষ্টি কোনো কিছুতেই ঘরে বসে থাকার উপায় নেই। আর বর্ষার সময় বৃষ্টি পড়ার কোনো সময়-অসময় নেই, যেকোনো সময়ই আকাশ কালো হয়ে বৃষ্টি নামতে পারে। আর প্রায় সময়ই দেখা যায় বৃষ্টিতে চুল ভিজে যাচ্ছে চুপচুপে। শুকানোর পরও চুলের সেই জৌলুস দেখা মুশকিল। অযথাই জট পাকিয়ে যাচ্ছে। চুল ধোয়া হলেও ভেজা চুল নেতিয়ে পড়ছে। রেগুলার কাজ বা দাওয়াতে চুলটা মলিন রূপ নিচ্ছে। আর চুলের স্টাইল ঠিক না থাকলে পুরো গেটআপটাই নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। ভেজা আবহাওয়াতে এলোমেলো অবিন্যস্ত চুল ম্যানেজ করার জন্য খুব বেশি কিছু করার প্রয়োজন নেই, নিয়মিত কিছু নিয়ম মেনে চুল সুন্দর রাখুন। চুল পরিষ্কার রাখুন, ভালোভাবে চুল আঁচড়ান ইত্যাদি।

ভালো শ্যাম্পু ও কন্ডিশনার চুলের যত্নে জরুরি। বৃষ্টির পানি, ঘাম ও গরম চুলের জন্য ক্ষতিকর। আর বর্ষাকালে এগুলো এড়িয়ে চলা সম্ভব নয়। তাই চুল পরিষ্কার রাখা ও ভালো কন্ডিশনার ব্যবহার করা জরুরি। কন্ডিশনার রয়েছে এমন শ্যাম্পু ব্যবহার না করাই ভালো। স্ক্যাল্পে কন্ডিশনার না লাগানোই উত্তম। স্ক্যাল্প পরিষ্কারের জন্য শ্যাম্পু যথেষ্ট। শুধু চুলে কন্ডিশনার ব্যবহার করতে হয়। চুল নরম ও চকচকে থাকবে। ভেজা নেতিয়ে পড়া চুলের জন্য ফ্রুট এক্সট্র্যাক্ট বা সাইট্রাস সমৃদ্ধ শ্যাম্পু ভালো। শুষ্ক চুলের জন্য প্রোটিন সমৃদ্ধ কন্ডিশনার ভালো কাজ করবে। চুল পরিষ্কার করার জন্য গরম বা ঠাণ্ডা পানি ব্যবহার করবেন না। হালকা উষ্ণ পানি ব্যবহার করুন। স্ক্যাল্প পরিষ্কার ও হেলদি হলে চুল সহজেই ভালো থাকে। স্ক্যাল্প নারিশমেন্টের জন্য নারকেল তেল, আমন্ড অয়েল বা অলিভ অয়েল লাগাতে পারেন। ন্যাচারাল কন্ডিশনারের কাজ করবে। আঙুলের ডগা দিয়ে তেল হালকাভাবে স্ক্যাল্পে ম্যাসাজ করুন। ঈষদুষ্ণ তেল ব্যবহার করতে পারেন। সহজে চুলের গোড়ায় ঢুকবে আর আরামদায়ক হবে। বৃষ্টির পানিতে ধুলো ময়লা থেকে স্ক্যাল্পে ইনফেকশন হওয়ার চান্স থেকে যায়। ভেজা চুল বেঁধে রাখবেন না। বর্ষার সময় ভেজা চুল শুকাতে রোজ ব্লো-ড্রায়ার, কার্লিং আয়রন বা স্ট্রেটনিং আয়রন ব্যবহার করার দরকার নেই। বর্ষায় আর্দ্রতা বাড়লেও চুলের ময়েশ্চার কনটেন্ট বেড়ে যায় না, হিটিং অ্যাপ্লায়েন্স ব্যবহার করলে চুল আরো রুক্ষ হয়ে পড়ে। তাই স্বাভাবিকভাবে চুল শুকানোই উত্তম। জেল মুজ ও হেয়ার স্প্রের মতো প্রডাক্টে অ্যালকোহলের পরিমাণ বেশি থাকে। অতিরিক্ত ব্যবহারে চুল রুক্ষ হয়ে পড়ে। বর্ষায় আর্দ্রতার কারণে এমনিতেই চুল নেতিয়ে থাকে। তার ওপর হেয়ার স্টাইলিং প্রডাক্ট ব্যবহার করলে চুল আরো ভারী হয়ে যায়। চুলে জট ছাড়ানোর জন্য বড় দাঁতের চিরুনি ব্যবহার করুন। পার্সিং স্ট্রেটনিং বা হেয়ার কালারের মতো কেমিক্যাল ট্রিটমেন্ট এড়িয়ে চলুন। সিম্পল ও সহজে মেইনটেইন করা যায় এ রকম হেয়ার স্টাইল করুন।

সহজে এ সময়ে চুল ভালো রাখার কিছু টিপস দেয়া হলো- বর্ষায় স্ক্যাল্পে ঘাম ও তেল জমে চুলে গন্ধ হয়। এক মগ পানিতে আধা কাপ গোলাপজল, লেবুর রস মিশিয়ে শ্যাম্পুর পর এই মিশ্রণ দিয়ে চুল ধুয়ে ফেলুন। অ্যালার্জি থেকে অনেক সময় স্ক্যাল্প চুলকায়। পারফিউম নেই এমন শ্যাম্পু ব্যবহার করুন। সকালে শ্যাম্পু করলে রাতে চুলের গোড়ায় অ্যান্টিইচিং ক্রিম লাগান। অনেক সময় তাড়াহুড়োয় চুলের তেলতেলে ভাব কমানোর জন্য শ্যাম্পু করার সময় থাকে না। সেক্ষেত্রে রুমাল বা কোনো পরিষ্কার কাপড়ে ওডি কোলন ঢালুন। রুমাল বা হেয়ার ব্রাশ দিয়ে চিরুনি মুড়ে নিন। ওই চিরুনি দিয়ে চুল আঁচড়ালে চুলে সুন্দর গন্ধ থাকবে আর তেল ভাব কমে যাবে। এ সময় খুশকির সমস্যা হতে পারে। অ্যান্টি ড্যানড্রাফ শ্যাম্পু ১০ মিনিট লাগিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

ঘরে তৈরি কিছু হেয়ার প্যাক

হানি অ্যান্ড অলিভ মাস্ক : ১ কাপ মধু ও অলিভ অয়েল মিশিয়ে সামান্য গরম করে নিন। তারপর চুলে ভালোভাবে এই হেয়ার মাস্ক লাগান। স্ক্যাল্পে বেশি তেল লাগানোর দরকার নেই। কারণ বর্ষায় এমনিতেই স্ক্যাল্প তেলতেলে থাকে। ১৫-২০ মিনিট পর শ্যাম্পু করে ফেলুন। চুল মজবুত রাখতে এই হেয়ার মাস্ক ভালো কাজে দেয়।

ব্যানানা ম্যাশ

কলা ম্যাশ করে এক ফোঁটা অলিভ অয়েল মেশান। চুলে ১৫-২০ মিনিট লাগিয়ে রাখুন, তারপর ঈষদুষ্ণ পানিতে চুলে শ্যাম্পু করুন। এলোমেলো চুল কন্ট্রোলে রাখতে ব্যানানা ম্যাশ উপকারী। শুষ্ক চুলে কলার সঙ্গে একটু মধু মিশিয়ে নিন। হালকা ম্যাশ করে চুলে লাগান। ৪৫ মিনিট পর ধুয়ে ফেলুন।

মেথি পেস্ট

দুই টেবিল চামচ মেথি সারা রাত পানিতে ভিজিয়ে রাখুন। পরদিন সকালে মিহি পেস্ট বানিয়ে নিন। স্ক্যাল্পে পেস্ট লাগিয়ে রাখুন আধা ঘণ্টা। তারপর শিকাকাই বা রিঠা দিয়ে চুল ভালো করে ধুলে ফেলুন।

দই প্যাক

টকদইয়ের সঙ্গে একটি লেবুর রস ও নিমপাতার রস মিশিয়ে মাথায় লাগান। ৪০ মিনিট পর শ্যাম্পু করে নিন। সপ্তাহে দুবার শ্যাম্পু করতে পারেন।

ম্যাঙ্গো মিন্ট ম্যাশ

স্বাভাবিক প্রকৃতির চুলের জন্য আম ও পুদিনা একটু ম্যাশ করে চুলে লাগাতে পারেন। চুল স্মুথ ও চকচকে রাখার জন্য ভালো। চুল এলোমেলো হয়ে যায় না। অয়েলি স্ক্যাল্পের জন্য পুদিনাপাতার পেস্টও ভালো।

চুল সুন্দর ঝলমলে আর চকচকে রাখুন। নিয়মিত সঠিক উপায়ে চুলের যত্ন নিন।

Anonymous এর ছবি
CAPTCHA
এই প্রশ্নটি আপনি একজন মানব ভিজিটর কিনা তা যাচাই করার জন্য এবং স্বয়ংক্রিয় স্প্যাম জমাগুলি প্রতিরোধ করার জন্য।