ঈদে ঘরে ফেরা সঙ্গী যেসব অনুষঙ্গ

 

ঈদের ছুটিতে অধিকাংশ মানুষই গ্রামের বাড়িতে ফেরেন। সেখানে সবার সঙ্গে ঈদের ছুটি উপভোগ করেন। সামনেই ঈদ। তাই এখন থেকেই লাগেজ গোছানো শুরু করা প্রয়োজন। না হলে জরুরি সময়ে প্রয়োজনীয় জিনিসটি হাতের কাছে পাওয়া সম্ভব হবে না। পোশাক, জুতা ও গহনার বাইরেও অনেক কিছুরই দরকার হয় ঈদ ভ্রমণে। যেগুলো সঙ্গে না থাকলে অনেক সময় বিপদে পড়ে যেতে হয়। এখন জেনে নিন ঈদে ঘরে ফেরার সময় যা রাখবেন নিজের সঙ্গে।

পানীয়

পানি, জুস ও স্যালাইন রাখুন নিজের সঙ্গে। গরম আবহাওয়ার সঙ্গে বাড়তি বিড়ম্বনা হিসেবে যোগ হবে রাস্তার দীর্ঘ জ্যাম। পানির তেষ্টায় যেন কষ্ট পেতে না হয়, সে বিষয়ে খেয়াল রাখুন।

শুকনো খাবার

দীর্ঘ পথ পাড়ি দেয়ার ফলে স্বাভাবিকভাবেই ক্ষুধাভাব দেখা দেবে। সে সময়ের জন্য সঙ্গে নিন শুকনো খাবার। চিপস, চানাচুর, বিস্কুট, টোস্ট বিস্কুট, ওয়েফার, বাটারবন ইত্যাদি। চাইলে বাসা থেকে পিঠা কিংবা ঝরঝরে নুডলস রান্না করেও সঙ্গে নিতে পারেন। এ সময় রাস্তা থেকে কেনা খাবার না খাওয়াই ভালো। এতে অসুস্থ হয়ে যাওয়ার আশঙ্কা থাকে।

 

বাড়তি টাকা

প্রয়োজন অনুযায়ী টাকা তো সঙ্গে থাকবেই। সঙ্গে ৩০-৪০ শতাংশ বাড়তি ক্যাশ টাকাও রাখুন। কোনো জরুরি প্রয়োজনে কিংবা বিপদে-আপদে ক্যাশ টাকাই সবার আগে প্রয়োজন হয়। কারণ মফস্বল এলাকার দিকে এটিএম বুথ খুব একটা সহজলভ্য নয়। বিকাশের সুবিধা থাকলেও প্রয়োজনের সময় ক্যাশ টাকার বিকল্প নেই।

 

বই, নোটবুক ও কলম

লম্বা পথ পাড়ি দেয়ার ফলে বিরক্তিবোধ চলে আসে। লাগাতার গান শুনতেও একঘেয়েমি কাজ করে অনেক সময়। বই সে সময়ের জন্য সবচেয়ে বড় সঙ্গী। সঙ্গে ছোট একটি নোটবুক ও কলম রাখুন ব্যাগে। প্রয়োজনীয় কোনো তথ্য কিংবা ছুটি শেষে কাজের প্ল্যান লিখে রাখতে পারবেন সহজেই।

ব্যবহার্য অনুষঙ্গ

ব্যক্তিগত ব্যবহার্য কিছু সামগ্রী সঙ্গে রাখুন। ঈদের ছুটি কাটাতে যেখানেই যান না কেন, এই জিনিসগুলো সবসময়ই কাজে আসবে। কী নেবেন সঙ্গে? চিরুনি, টুথব্রাশ, মিনি টুথপেস্ট, ফেসওয়াশ, মিনি সাবান, ফেস ক্রিম, লোশন, বডি স্প্রে, রেজর, বাড়তি স্যান্ডেল, রুমাল, গামছা, কটনবাড, সেফটিপিন, টুথপিক ইত্যাদি। আপনি যদি কোনো মেডিকেশনে থাকেন, তবে সেটা সবার আগে লাগেজে রাখুন। মেডিকেশনে না থাকলে জরুরি কিছু ওষুধ রাখুন নিজের সঙ্গে।

ইলেকট্রনিক্স অনুষঙ্গ

প্রয়োজনীয় ইলেকট্রনিক্স পণ্য ছাড়া বর্তমান জীবন অনেকটাই অচলই। অথচ কোনো এক অজানা কারণে অতি প্রয়োজনীয় এই জিনিসগুলো সঙ্গে রাখতেই ভুলে যাই আমরা। তাই মনে করে আগে থেকেই প্রয়োজনীয় ইলেকট্রনিক্স পণ্যগুলো গুছিয়ে ব্যাগে রাখুন। ইয়ারফোন, পাওয়ার ব্যাংক, চার্জার, ক্যামেরা ও মোবাইল ফোন নিতে ভুলে যাবেন না।

হাতপাখা

ফোল্ডিং কিংবা প্লাস্টিকের ছোট হাতপাখা সঙ্গে রাখতে একদম ভুলবেন না। এমন ভ্যাপসা গরম আবহাওয়ায় হাতপাখা অনেকখানি নির্ভরতার নাম। বিশেষ করে ভ্রমণে যদি শিশু থাকে, তবে হাতপাখা অবশ্যই সঙ্গে রাখতে হবে।

পলিথিন

হ্যান্ডব্যাগে ছোট কয়েকটি পলিথিন নিয়ে নিন। নানান কাজেই পলিথিন প্রয়োজন হতে পারে। খাবারের প্যাকেট, অন্যান্য ময়লা রাস্তাঘাটে যেখানে-সেখানে না ফেলে পলিথিনে জড়ো করে রেখে দিন। গন্তব্যে পৌঁছানোর পর পলিথিনটি নির্দিষ্ট স্থানে ফেলে দিন।

সিভিট কিংবা লজেন্স

ভ্রমণে বমির প্রাদুর্ভাব দেখা দেয়া খুবই কমন একটি সমস্যা। ওষুধ গ্রহণেও খুব একটা ভালো কাজ হয় না। অস্বস্তিদায়ক এ সমস্যাটি থেকে পরিত্রাণ পাওয়ার জন্য মুখে সিভিট কিংবা লজেন্স রেখে দিতে হবে। এতে অনেকটা উপকার পাওয়া সম্ভব হয়। তাই সঙ্গে এক পাতা সিভিট কিংবা কয়েকটি লজেন্স রেখে দিন।

মোবাইল রিচার্জ কার্ড

ক্যাশ টাকা যে কারণে সঙ্গে রাখা প্রয়োজন, ঠিক একই কারণে মোবাইলের রিচার্জ কার্ড রাখুন সঙ্গে। ৫০ টাকার দুটি কার্ড কিনে মানিব্যাগে রেখে দিন।

Anonymous এর ছবি
CAPTCHA
এই প্রশ্নটি আপনি একজন মানব ভিজিটর কিনা তা যাচাই করার জন্য এবং স্বয়ংক্রিয় স্প্যাম জমাগুলি প্রতিরোধ করার জন্য।