ঈদের জুতো

ঈদের পোশাকটি কেনা হয়ে গেলে এক জোড়া জুতো কেনাই বাকি থাকে। পোশাকের সঙ্গে মিল রেখেই মূলত জুতো পছন্দ করা হয়। নারী থেকে পুরুষ, শিশু থেকে বৃদ্ধা সবারই ঈদে প্রয়োজন নতুন জুতো, নাহলে ঈদের শপিং কেমন যেন পরিপূর্ণ হয় না। পোশাক বা জুতো বা গহনা, যেটাই হোক না কেন, নারীরা এসব ক্ষেত্রে তুলনামূলক সচেতন। ইতোমধ্যে শপিংমলগুলোতে ঈদের জুতো কিনতে ভিড় করেছে ক্রেতারা। রোজার শেষের দিকে নতুন ডিজাইনগুলো শেষ হয়ে যায়, তাই দ্রুত জুতোর শপিং শেষ করে ফেলা উচিত।

এবার ঈদে লোফার বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। পুরুষরা তো বটেই, নারীরাও এবার লোফার কেনার দিকে ঝুঁকছে। এই জুতোগুলো একই সঙ্গে ফ্যাশনেবল ও আরামদায়ক। নিচু স্যু জাতীয় এই জুতোগুলো নারীদের সালোয়ার-কামিজের সঙ্গে যেমন মানিয়ে যাবে, তেমনি ফতুয়া বা টি-শার্ট জিন্সের সঙ্গেও বেশ মানাবে। এদিকে পুরুষরা যেকোনো পোশাকের সঙ্গেই লোফার মানিয়ে নিতে পারবে। সাধারণত ন্যুড রঙের লোফার পরতে বেশি পছন্দ করে পুরুষরা। তবে ন্যুড রঙগুলো ছাড়াও বাহারি রঙের লোফার পেয়ে যাবেন শপিংমলগুলোতে। বড় বড় শপিংমল ছাড়াও ছোট দোকানেও লোফার পাওয়া যাচ্ছে। ২০০০-৬০০০ টাকার মধ্যে ভালো মানের লোফার খুঁজে পাবেন এবার ঈদে।

ঈদে গর্জিয়াস লুক ও পোশাকের সঙ্গে একটু গর্জিয়াস জুতোই মানাবে। সেক্ষেত্রে লোফারে কাজ চালালেও, হিল জুতোই বেশি মানানসই হবে। হিলে আছে আবার বিভিন্ন ধরন। স্টিলেটো, ওয়েজেস, প্লাটফর্ম হিল যেকোনোটা বেছে নিতে পারবেন। ঈদে সারাদিন বাইরে থাকলে স্টিলেটো ভালো অপশন হবে না। উঁচু এই হিলগুলোতে বেশিক্ষণ হাঁটা পায়ের জন্য ভালো হবে না। সারাদিন ব্যবহারের জন্য প্লাটফর্ম হিলগুলো বেছে নিন। এই হিলগুলোতে হাঁটা তুলনামূলক আরামদায়ক। আবার আরাম ও ফ্যাশন দুটোই পেতে চাইলে প্লাটফর্ম হিল বেছে নিতে পারেন। স্টিলেটো ও প্লাটফর্ম হিলগুলোর দাম ২০০০ থেকে শুরু, আর ওয়েজেস পাবেন ১০০০ থেকে।

এবার ঈদে বেশ গরম পড়বে। সেক্ষেত্রে খোলা স্যান্ডেলও বেছে নিতে পারেন ঈদের দিন পরার জন্য। নারী- পুরুষ সবাই স্যান্ডেল স্যুগুলো সিম্পল পোশাক ও সাজের সঙ্গে মিলিয়ে বেছে নিতে পারেন। বয়স্কদের জন্য স্যান্ডেল স্যুগুলোই গরমের জন্য ঠিক হবে। এক্ষেত্রে ফ্যাশনেবলের চেয়ে আরামদায়ক স্যান্ডেল বেছে নিলে পুরো গরমে চালিয়ে দিতে পারবেন ঈদে কেনা স্যান্ডেলটি। বিভিন্ন দামের এই স্যান্ডেলগুলো যেকোনো দেশি-বিদেশি জুতোর দোকানে পেয়ে যাবেন।

শিশুদের জুতো কিনতে কিছু বিষয় খেয়াল রাখা উচিত। শিশুরা দৌড়াদৌড়ি বেশি করে, এজন্য পেছনে বেল্ট লাগানো জুতো কেনা উচিত। আরামদায়ক, বাহারি নকশাওয়ালা শিশুদের উপযোগী জুতো পাবেন বড়দের জুতোর দোকানগুলোতেই। স্যু জাতীয় জুতোগুলো মেয়ে শিশুদের জন্য বেশ জনপ্রিয়। লেইস, পুঁতি, পাথর লাগানো এই পাম্প স্যুগুলো মেয়েশিশুদের যেকোনো ধরনের পোশাকের সঙ্গে মানিয়ে যাবে। আরো আছে ব্যালেরিনা স্যু। আর ছেলেশিশুর জন্য আছে পেছনে বেল্ট লাগানো চামড়ার জুতো। শপিংমলসহ বিভিন্ন ফ্যাশন হাউজগুলো এনেছে এবার শিশুদের ঈদের জুতা। ছেলেশিশুদের গর্জিয়াস পাঞ্জাবির সঙ্গে কোলাপুরি জুতোগুলো জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে কয়েক বছর ধরে। স্নিকার্স বা ভ্যান্সগুলোও ছেলেশিশুদের জন্য পছন্দ করতে পারেন। সারা বছরই পরা যাবে এই জুতোগুলো।

দেশি আউটলেট ছাড়াও কয়েক বছর ধরে বিদেশি আউটলেটগুলো জনপ্রিয় ঈদের জুতোর জন্য। চায়না ও থাইল্যান্ডের এই জুতোর শপগুলো স্বল্পমূল্যে আরামদায়ক ও বিভিন্ন ডিজাইনের জুতো ক্রেতাদের হাতের কাছে এনে দিচ্ছে। এছাড়া অনলাইন শপও জনপ্রিয় জুতোর জন্য। এবার ঈদে যে ধরনের জুতো কেনেন না কেন, গরমকে মাথায় রেখে কেনা উচিত হবে। গরমে যে জুতো বেশিক্ষণ পরে স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করবেন, সেটাই বেছে নিন।

Anonymous এর ছবি
CAPTCHA
এই প্রশ্নটি আপনি একজন মানব ভিজিটর কিনা তা যাচাই করার জন্য এবং স্বয়ংক্রিয় স্প্যাম জমাগুলি প্রতিরোধ করার জন্য।

Home popup