বয়ঃসন্ধিকালে আবেগ চেপে রাখবেন না

আমাদের সবার আবেগ প্রকাশের ভঙ্গি এক রকম হয় না। অনেকে সামান্য আবেগও সবার সামনে খুব স্পষ্টভাবে প্রকাশ করেন; কান্না-হাসি বা যেকোনো ভাবে, আর অনেকে কোনোভাবেই আবেগ প্রকাশ করেন না, নিজের কাছে চেপে রাখেন।

সাধারণত বয়ঃসন্ধিকালে আমাদের অনেকেরই আত্মসম্মানবোধ বা লজ্জা বা সংকোচ বেশি থাকে। এই সময়েই আমরা আমাদের আবেগ ও মানসিক চাপ নিজের কাছেই চেপে রাখি। অনেক ক্ষেত্রে মানসিক চাপের কারণগুলোকে পজিটিভভাবে নেয়ার ও ভাবলেশহীন থাকার প্রবণতা দেখা গেলেও, তুলনামূলকভাবে আবেগ চেপে রাখার প্রবণতাই সবচেয়ে বেশি দেখা যায়।

ডাক্তার এবং গবেষকেরা বলছেন এভাবে আবেগ মনে চেপে রাখলে তা স্বাস্থ্যের জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর হতে পারে। যুক্তরাষ্ট্রের পেনসিলভানিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষণায় দেখা গেছে আবেগকে যারা জমিয়ে রাখে মনে তাদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কমে যায়। রোগ প্রতিরোধকারী কোষ ভাইরাসের সংস্পর্শে এনে এই পরীক্ষা করেন তারা।

তুলনামূলকভাবে, আবেগ পরিদর্শন করা ও পরিস্থিতির সাথে মানিয়ে নেয়ার প্রবণতা যাদের বেশি তাদের বিপাকক্রিয়া ও রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা অনেক ভালো।

বিপাকক্রিয়া ক্ষমতা পরিবর্তন ও প্রদাহের মতো জটিল ও ক্ষতিকারক রোগ থেকে এবং ভবিষ্যতে দুরারোগ্য ব্যাধি থেকে বাঁচতে পারা যাবে শুধু বয়ঃসন্ধিকালে আবেগ খানিকটা নিয়ন্ত্রণে থাকলেই। তবে এরকম দৃষ্টিভঙ্গি ও মনোবল গড়ে তোলার পেছনে মা-বাবা ও পরিবারেরও অনেক অবদান থাকে।     

Anonymous এর ছবি
CAPTCHA
এই প্রশ্নটি আপনি একজন মানব ভিজিটর কিনা তা যাচাই করার জন্য এবং স্বয়ংক্রিয় স্প্যাম জমাগুলি প্রতিরোধ করার জন্য।

Home popup