কর্মক্ষেত্রে বাজে সহকর্মীদের কিভাবে সামলাবেন?

বন্ধু বেছে নেয়া যায়, তবে সহকর্মী পুরোটাই ভাগ্যের উপর নির্ভর করে। আর সবার সহকর্মী ভাগ্য একরকম হয় না। আপনার সহকর্মী খুব বন্ধুবৎসল, ভাল কর্মী ও সহযোগী হতে পারে, আবার অলস, হিংসুটে এবং অসহযোগীও হতে পারে। যেহেতু আমাদের দিনের বড় একটা সময় আমাদের কর্মক্ষেত্রেই কাটাতে হয়, এবং কে আপনার সহকর্মী হবে তাতে বেশিরভাগ সময়েই আপনার কোন হাত থাকে না, তাই আমাদের প্রায় সব ক্ষেত্রেই এই বাজে সহকর্মীদের সাথে মানিয়ে চলতেই শিখতে হয়। বাজে সহকর্মী যেন আপনার কাজ ও জীবনে ব্যাঘাত ঘটাতে না পারে তার দায়িত্ব নিতে হবে আপনাকেই।  

১। অলস সহকর্মী সামলানো সবচেয়ে বেশি ঝামেলা, বিশেষ করে একই প্রজেক্টে আপনাদের দুইজনেরই দায়িত্ব থাকলে। এক্ষেত্রে তাদের জন্য বসে না থেকে নিজের কাজ ঠিক সময়ে শেষ করে ফেলা উচিত, আর যদি তাদের সময়মত কাজ না করা আপনার পারফর্মেন্সের উপর প্রভাব ফেলে তাহলে সেটা আপনার বসের কাছে জানানোই ভাল।

২। পরচর্চায় পারদর্শী মানুষের দেখা পাওয়া যায় সবখানেই, কর্মক্ষেত্রেও। এরা আপনার সময় নষ্ট করবে, আপনার নামেও বিভিন্ন গুজব ছড়াতে পারে। এদের দূরে রাখাও বেশ মুশকিল। এদের সাথে কাজের স্বার্থে যতটুকু সম্পর্ক রাখতে হয়, তার বেশি রাখা মোটেই উচিত না।

৩। নিরাশাবাদী সহকর্মীরা আপনাকে কাজে ভাল করতে নিরুৎসাহিত করবে। আপনার সাফল্যের নেতিবাচক দিকসমূহ খুঁজে বের করে আপনার কাজে ভাল করার ইচ্ছা নষ্ট করে দেবে। তবে এদের পুরোপুরি এড়িয়ে যাওয়ার চেয়ে বরং তাদের ভাল কাজে উৎসাহিত করা যায়। তবে তার জন্য আপনার নিজের সময় নষ্ট করার দরকার নেই। যদি তাদের বিষণ্ণতা আপনার কাজে ব্যাঘাৎ ঘটায়, এদের থেকেও দূরে থাকুন।

৪। অতি-উৎসাহী বা আইডিয়াবাজ সহকর্মীরা সবসময় খারাপ হয় না, অনেক ক্ষেত্রে তাদের সাথে কাজ করার অভিজ্ঞতা বেশ ভালই হবে। তবে তাদের পরিকল্পনা বাস্তবায়নের জন্য আপনার কাজ ও সুনাম নষ্ট করতে যাবেন না।  

Anonymous এর ছবি
CAPTCHA
এই প্রশ্নটি আপনি একজন মানব ভিজিটর কিনা তা যাচাই করার জন্য এবং স্বয়ংক্রিয় স্প্যাম জমাগুলি প্রতিরোধ করার জন্য।